Monday, August 26, 2019 4:33 am
Spread the love

সত্যজিৎ রায়কে যেমন সারা দুনিয়া ‘পথের পাঁচালী’র জন্য চেনে, তেমনি শুধুমাত্র ‘ভুবন সোম’, ‘নীল আকাশের নীচে’, ‘পদাতিক’, ‘একদিন আচানক’ সহ বেশকিছু ছবির জন্য মানুষ মৃণাল সেনকে মনে রাখবে।

মৃণাল সেন এমন একজন পরিচালক, যিনি বিশ্বাস করতেন সিনেমা শুধুই বিনোদনের জন্য নয়, সিনেমার মাধ্যমে মানুষকে শিক্ষিত করে তোলাও যায়।

মৃণাল সেনের সৃষ্টির ঝুলিতে রয়েছে ‘ভুবনসোম’, ‘কোরাস’, ‘মৃগয়া’, ‘আকালের সন্ধানে’, ‘পুনঃশ্চ’, ‘পরশুরাম’, ‘একদিন প্রতিদিনে’র মতো অসামান্য সব ছবি। তার শেষ ছবি ‘আমার ভুবন’ (২০০২)। সর্বমোট ২৭টি পূর্ণ দৈর্ঘ্যের ছবি, ১৪টি স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবি ও ৪টি তথ্যচিত্রের পরিচালনা করেছিলেন মৃণাল সেন।

জিনিউজ পত্রিকার খবরে বলা হয়, কিংবদন্তি পরিচালকের ঝুলিতে রয়েছে ১৮টি জাতীয়, ১২টি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র পুরস্কার। মস্কো, বার্লিন, কান ফেস্টিভ্যালে পুরস্কৃত হন তিনি। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্তরে বহু সম্মানে ভূষিত হয়েছেন মৃণাল সেন।

১৯৮১ সালে তাকে পদ্মভূষণ সম্মানে ভূষিত করে ভারত সরকার। ২০০৫ সালে ভারত সরকার প্রদত্ত বিনোদন জগতের সর্বোচ্চ সম্মান দাদাসাহেব ফালকে অ্যাওয়ার্ড পান তিনি। সাহিত্য ও শিল্পে অনস্বীকার্য অবদানের জন্য তাকে কম্যান্ডার অফ দ্য অর্ডার অফ আর্টস অ্যান্ড লেটারস (Ordre des Arts et des Lettres ) সম্মানে সম্মানিত করেছিল ফরাসি সরকার। ফ্রান্সের সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান কম্যান্ডার অফ দ্য অর্ডার অফ আর্টস অ্যান্ড লেটারস।

শুধু বাংলা নয়, হিন্দি, ওড়িয়া, তেলগু ভাষাতেও ছবি বানিয়েছিলেন পরিচালক মৃণাল সেন।

১৯৯৮ সাল থেকে ২০০৩ পর্যন্ত রাজ্যসভার সদস্যও ছিলেন এই কিংবদন্তি পরিচালক।


Spread the love

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন