Friday, November 22, 2019 11:21 am
Spread the love

আল মারকাজুল ইসলামীর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান খ্যতিমান আলেম ও সাবেক এমপি মুফতি শহীদুল ইসলাম । মুফতি শহীদুল ইসলাম ইসলামী ঐক্যজোটের ব্যানারে নড়াইল থেকে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের জ্যেষ্ঠ নায়েবে আমির ছিলেন।

পরিচয়ঃ
শামসুল হক সরদারের পুত্র মো.শহিদুল ইসলাম ১৯৬০ সালে ১৫ মার্চ ফরিদপুর সদরের ঝিলটুলী এলাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৮৮ সালে করাচীর নিউটাউন মাদ্রাসা থেকে দাওরায়ে হাদিস ও মুফতী ডিগ্রি লাভ করেন। পেশায় ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক জনাব শতিদুল ইসলাম দুই পুত্র ও তিন কন্যার জনক।

রাজনীতি :
সংসদীয় রাজনীতিতে অভিষিক্ত হওয়ার পূর্বে প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে তার কোন সম্পৃক্ততা ছিল না।মুফতি শহিদুল ইসলাম ২০০৯ সালে বাংলাদেশ গণসেবা আন্দোলন নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করেন। রাজনৈতিক কারণে তিনি বিগত সরকার আমলে গ্রেফতার ও কারাভোগ করেন।

সামাজীক কর্মকাণ্ড:
শিক্ষার বিস্তার, আত্মশুদ্ধি ও সেবার লক্ষ্য নিয়ে ১৯৮৮ সালে তিনি আল মারকাজুল ইসলামী প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি এ সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। বর্তমানে এ সংগঠনের আওতায় সারা দেশে ১৩০টি মসজিদ, ১৩টি মাদ্রাসা ও শ্যামলীতে আল মারকাজুল ইসলামী হাসপাতাল এবং মুমূর্ষ রোগী ও লাশ বহনের জন্য দেশের সর্ববৃহৎ বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস চালু রয়েছে।
ইসলামী ঐক্যজোটের মজলিমে শূরার সদস্য জনাব ইসলাম নর্থ সাউথ ট্রাভেলসের চেয়ারম্যান এবং আল চক্ষু হাসপাতালে সাবেক পরিচালক। ১৯৯৮-এর বন্যায় এ সংগঠনের মাধ্যমে তিনি ব্যাপক ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

সাংসদ:
মুফতি শহীদুল ইসলাম ২০০১ সালের নির্বাচনে নড়াইল-২ আসনে চারদলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে মাত্র ৪ হাজার ২৩৩ ভোটে হেরে যান। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসনটি ছেড়ে দিলে উপনির্বাচনে মুফতি শহিদুল ইসলাম সাংসদ নির্বাচিত হন।

ভ্রমন:
জনাব ইসলাম ভ্রমন করেছেন সৌদি আরব, দক্ষিণ আফ্রিকা, যুক্তরাষ্ট্র, কুয়েত ও সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ বেশ ক’টি দেশ।


Spread the love

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন